বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:৩৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
বরিশালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০২৪ উপলক্ষে শর্টপিচ টেষ্ট ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে গলাচিপায় মহান শহিদ দিবস পালিত জনপ্রশাসন থেকে শূন্য পদে নিয়োগের তাগিদ থাকলেও বাস্তবায়ন হচ্ছে না বিআরইউ’র আয়োজনে অমর ২১ শে ফেব্রুয়ারী উপলক্ষে চিত্রাংকন ও কুইজ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত ৭ দফা দাবী আদায়ের লক্ষে বরিশালে ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলেদের বিক্ষোভ সমাবেশ নলছিটিতে বেদে পরিবার ও শিশুদের মাঝে খাদ্য ও বস্ত্র বিতরণ বরিশাল কর অঞ্চল অফিসে ৫ ভাইয়ের রাজত্ব বিআরইউ’র আয়োজনে ভাষা স্মারক ও সাহিত্য প্রদর্শণীর উদ্বোধন  অর্থ পাচারকারী ও ঋণখেলাপীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ এবং পাচারকৃত অর্থ ফেরত আনার দাবিতে বরিশালে বাংলাদেশ ব্যাংক অভিমুখে বাম জোটের বিক্ষোভ বরিশাল সদর উপজেলা বি এন পির লিফলেট বিতরণ বরিশালে বিপুল পরিমাণ গাঁজাসহ স্বামী-স্ত্রী আটক বাজারে নিত্যপণ্যের দাম সাধারন মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে আনার দাবীতে বরিশালে মানববন্ধ বরিশালে ১০দিন ব্যাপি বিসিক উদ্যোকক্তা মেলায় ৮১ লক্ষ টাকা বিক্রির রেকর্ড বরিশালে আট ড্রাম ভর্তি রেণুসহ পাঁচজন আটক কারামুক্ত যুবদল নেতাকে সংবর্ধনা বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদল বরিশাল মহানগর
বিলীনের পথে জমিদার রাজেশ্বর রায় চৌধুরীর শেষ স্মৃতিচিহ্ন

বিলীনের পথে জমিদার রাজেশ্বর রায় চৌধুরীর শেষ স্মৃতিচিহ্ন

Sharing is caring!

এস এল টি তুহিন : সংস্কারের অভাবে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থেকে একেবারেই নিশ্চিহ্নের পথে পটুয়াখালী শহরের প্রানকেন্দ্রে অবস্থিত পটুয়াখালীর শেষ জমিদার রাজেশ্বর রায় চৌধুরীর কাছারিবাড়ি। অস্তিত্ব সংকটে রয়েছে ইতিহাসের কালেরসাক্ষী এই কাছারি বাড়িটি।

বেশ কয়েক বছর আগে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ কর্তৃক এই ভবনটি সংরক্ষণের উদ্যোগ নিলেও পরবর্তীতে তাদের আর কোনো কার্যক্রম পরিলক্ষিত হয়নি। ইতিহাসের সাক্ষী জমিদারি আমলের এই কাছারিবাড়ি অবিলম্বে সংরক্ষণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া না হলে অস্তিত্ব সম্পূর্ণ বিলুপ্ত হয়ে যাবে অচিরেই।

জানা যায়, জমিদারীর কার্যক্রম পরিচালনার প্রয়োজনে শহরের নতুন বাজার এলাকায় ২৫০ বছর পূর্বে এই কাছারি বাড়িটি নির্মাণ করা হয়। ২৫০ বছরের প্রাচীন ইতিহাস ঐতিহ্য বিজড়িত এই কাছারিবাড়িটি বেশ কয়েক বছর ধরে অবেহেলায় নিশ্চুপ দাঁড়িয়ে আছে শহরের বুকে। জেনো কথা বলার কেউ নেই।

বছরের পর বছর জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে থেকে এখন ভূতের বাড়ির মতো রূপ নিয়েছে পটুয়াখালীর শেষ দাপুটে জমিদার রাজেশ্বর রায়ের এই কাছারি বাড়ি।

পটুয়াখালীর শেষ জমিদার রাজেশ্বর রায় চৌধুরীর শেষ স্মৃতিচিহ্ন বিজড়িত জমিদারী আমুলের এই ভবন এই অঞ্চলের নানা ইতিহাসের কাল সাক্ষী। সংস্কারের অভাবে দিনে দিনে মাটির সঙ্গে মিশে যাচ্ছে আমাদের পূর্ব ইতিহাস। বর্তমান প্রজন্মের কাছে অজানাই থেকে যাচ্ছে ইতিহাসের প্রতিটি পৃষ্ঠা।

শহরের একোয়ার স্টেট নামে পরিচিত এই কাছারি বাড়ি এলাকার একাংশ ক্রমান্বয়ে নানা কৌশলে বেহাত হয়ে গেছে। জমিদারদের স্থাপিত মন্দির পাষানময়ী কালীবাড়ি স্থানীয়দের দান-অনুদানে সংস্কার করে সেখানে নিয়মিত পূজা-অৰ্চনা চলে আসছে।

এই প্রাচীন কাছারি বাড়ির ইতিহাস ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগ নেয়া

আবশ্যক বলে মনে করেন পটুয়াখালী প্রেসক্লাব ও জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্স। তিনি বলেন, জমিদারী আমলের এই স্থাপনা যদি এখনো সংস্কারের মধ্য দিয়ে সংরক্ষণ করা না হয় তবে ইতিহাসের কাল সাক্ষী এই কাছারি বাড়ি অচিরেই বিলীন হয়ে যাবে। অতিদ্রুত জমিদার রাজেশ্বর রায়ের এই কাছারি বাড়িটির সংস্কার করা জরুরী।

বিলুপ্তির পথে হলেও এখনও এই প্রাচীন স্থাপনায় ইতিহাসপিপাসু বহু মানুষের পদচারনা লক্ষ্য করা যায়। বিশেষ করে লক্ষ্য করা যায় স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের। বহু শিক্ষার্থী ঘুরতে আসেন জমিদার রাজেশ্বর রায়ের এই কাছারি বাড়িতে। জানতে চায় এর ইতিহাস। তবে বড় পরিতাপের বিষয় সবাইকেই ফিরে যেতে হতাশ হয়ে।

সিরাজ উদ্দীন আহমেদের লেখা ‘বরিশালের ইতিহাস ও ইয়াকুব আলী সিকদারের প্রবন্ধ ‘পটুয়াখালীর অতীত ও বর্তমান থেকে পাওয়া তথ্য ও আরও বেশ কিছু তথ্য অনুযায়ী,

১৮১৭ সালে বরিশালকে পৃথক করে দেওয়ানী শাসন প্রসারের জন্য স্থাপন করা হয় চারটি মুন্সেফী চৌকি। বাউফল চৌকি স্থানান্তর করা হয় লাউকাঠীতে। ১৮৭১ সালে পটুয়াখালীকে উন্নীত করা হয় মহকুমায়। জমিদার হৃদয় শংকরের পুত্র কালিকা প্রসাদ রায়ের নামানুসারে লাউকাঠীর দক্ষিণ পাড়ের গ্রামের নামকরণ করা হয় কালিকাপুর।

এখানে গড়ে ওঠে পটুয়াখালী শহর। কলসকাঠির জমিদার বরদা কান্ত রায় চৌধুরীর ছেলে বিশ্বেশ্বর রায় চৌধুরী ১২৯৬ বঙ্গাব্দে পটুয়াখালী মহকুমার অধীন কালিকাপুর কিসমতের বন্দ্যোপাধ্যায় মুদাফা তালুকটি কিনে নেন। এই অঞ্চলের সর্বশেষ জমিদাররা ছিলেন বিশ্বেশ্বর রায় চৌধুরীর চার ছেল।তার মধ্যে রাজেশ্বর রায় চৌধুরী পটুয়াখালীর জমিদারী পরিচালনা করেন। প্রবল দাপটের সঙ্গে পটুয়াখালীর শেষ জমিদারি পরিচালনা করেন জমিদার রাজেশ্বর রায় চৌধুরী।

পটুয়াখালীতে নির্মাণ করা হয় কাছারি বাড়ি, এখানে তাদের জমিদারীর হাউলিও ছিল।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © crimeseen24.com-2017
Design By MrHostBD