বুধবার, ২৪ Jul ২০২৪, ০৫:২১ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
বরিশালের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকায় কোটা আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া কলাপাড়ায় যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার কলাপাড়ায় সমুদ্রগামী জেলেদের মাঝে লাইফ জ্যাকেট বিতরণ ইলিশ ও বিভিন্ন প্রজাতির সামুদ্রিক ৮০ মন মাছসহ একটি কাভার্ট ভ্যান ও একটি বাস জব্দ কোটা বিরোধী আন্দোলনে কুয়াকাটা ছাত্রলীগ কর্মীর ছবি ভাইরাল হসপিটালের কাজে দূর্নীতি প্রতিবাদ করায় ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে অপপ্রচার, প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন মহানগর বি এন পির আহবায়কের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় সাংগঠনিক দক্ষতাই শিরীনকে ঈর্ষার কারণ কলাপাড়ায় পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু কলাপাড়ায় উল্টো রথটানার মাধ্যমে রথযাত্রা উৎসব অনুষ্ঠিত কুয়াকাটায় তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের সৈকত পরিচ্ছন্নতা অভিযান বরগুনার আমতলীতে বহিষ্কৃত নেতা কর্মীকে নিয়ে যুবদলের আনন্দ মিছিল এরশাদের ৫ম মৃত্যুবার্ষিকীতে দোয়ার আয়োজন গৌরনদী পৌর মেয়রের শপথ গ্রহণ সভাপতি আনু, সম্পাদক আমির। কুয়াকাটা প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন
সার্জারি বিভাগের সফল অস্ত্রোপচার ৫০ কেজি ওজনের রোগীর পেট থেকে ১২ কেজি ওজনের বিরল টিউমার অপসারণ

সার্জারি বিভাগের সফল অস্ত্রোপচার ৫০ কেজি ওজনের রোগীর পেট থেকে ১২ কেজি ওজনের বিরল টিউমার অপসারণ

Sharing is caring!

শামীম আহমেদঃ

৫০ কেজি ওজনের রোগীর পেট থেকে ১২ কেজি ওজনের বিরল টিউমার অপসারণ করলো বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের চিকিৎসকরা।

(৩০) জুন রোববার প্রায় সাড়ে ৫ ঘণ্টা অস্ত্রোপচারের মধ্য দিয়ে রেট্রো পেরিটোনিয়াল নামের টিউমারটি অপসারণ করা হয়। বর্তমানে ৪৫ বছর বয়সী রোগী কামাল হোসেন সুস্থ আছেন। সফল এই অস্ত্রোপচারের নেতৃত্ব দেন শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ও সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. জি. এম. নাজিমুল হক।

 

রোগীর বড় ভাইয়ের স্ত্রী মৌরিন বেগম জানান, গত দুই বছর পূর্বে পিরোজপুর জেলার স্বরুপকাঠী উপজেলার সোহাগদল গ্রামের রেডিও মেকার হিসেবে পরিচিত মো. কামাল হোসেন পেটে ব্যথা শুরু হয়।

তখন অর্থের অভাবে গ্রামের হোমিও চিকিৎসকের পরামর্শ নেন। পরবর্তীতে হোমিও চিকিৎসক তাকে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন। গত ২২ জুন তিনি শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের ১ নং ইউনিটে অধ্যাপক ডা. ডা. জি. এম. নাজিমুল হক’র তত্ত্বাবধায়নে ভর্তি হন।

খালাতো ভাই মো. জাহিদ হোসেন জানান, শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে দুই সন্তানের জনক মো. কামাল হোসেনকে ভর্তির পর এখানকার চিকিৎসকরা যতœ সহকারে তার চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু করেন। অতঃপর প্রয়োজনীয় ঔষধ ছাড়া তেমন কোন খরচ ছাড়াই সফল অপারেশন সম্পন্ন হয়েছে। রোগী বর্তমানে অন্য অপারেটিভে আছেন।

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৫ম তলায় সার্জারি অপারেশন থিয়েটারে বিরল এই টিউমারের সফল অস্ত্রোপচারের নেতৃত্ব দেন শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ও সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. জি. এম. নাজিমুল হক। অস্ত্রোপচারের টিমে ছিলেন সহকারী অধ্যাপক ডা. প্রদিব কুমার কর্মকার, সহকারী অধ্যাপক ডা. গ্রিন চন্দ্র বিশ্বাস, সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. অনুপ কুমার সরকার ও ডা. মো. হোসাইন শাওন, মেডিকেল অফিসার ডা. মো. বায়েজীদ হোসেনসহ ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

সার্জারি বিভাগের ১ নং ইউনিটের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. অনুপ কুমার সরকার বলেন, রোগী কামাল হোসেন পেট ফুলা, পেটে ব্যথা, খাবারে অনীহা ও দিনে দিনে ওজন কমে যাওয়া সমস্য নিয়ে ভর্তি হন। তখন তার পেটে সিটি স্ক্যানসহ বিভিন্ন পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া যায় তার পেটে বড় সাইজের রেট্রো পেরিটোনিয়াল নামের টিউমার রয়েছে। তখন ৪৫ বছর বয়সি এই রোগীর ওজন ছিল মাত্র ৫০ কেজি। রোগীর কাছে অপারেশনটি ছিল খুবই জটিল। প্রায় সাড়ে ৫ ঘণ্টা সময় লেগেছে এই অপারেশনে।

সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. প্রদিব কুমার কর্মকার বলেন, রোববার সকালেই রোগী কামাল হোসেন’র অস্ত্রোপচার শুরু হয়। তার পেট কেটে দেখা যায় একটি বড় আকারে টিউমার পেটের চারপাশে ছড়িয়ে আছে। দীর্ঘক্ষণ অপারেশনের পর প্রায় ১২ ওজনের রেট্রো পেরিটোনিয়াল টিউমারটি অপসারণ করা হয়।

সফল এই অপারেশনের নেতৃত্ব দেয়া শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. জি. এম. নাজিমুল হক বলেন, রোগীর পেটের চারপাশে টিউমারটি ছড়িয়ে ছিল।

বিশেষ করে তার পেটের ওপরের অংশ থেকে শুরু করে নীচ পর্যন্ত টিউমার বিস্তৃত ছিল। আমরা রোগীর খাদ্যনালি সেইফ করে ১২ কেজি ওজনের বড় আকারের টিউমারটি অপসারণ করেছি। এবং টিউমারটি পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য বায়োপসি টেস্ট করতে পাঠানো হয়েছে। রোগী বর্তমানে সুস্থ আছেন। বায়োপসি রিপোর্ট আসা পর্যন্ত রোগী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকবেন। তিনি বলেন, এই ধরনের টিউমার রোগী বেশিদিন বহন করলে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

তাই প্রাথমিক অবস্থায় চিকিৎসা এই রোগের করানো হলে রোগীর ঝুঁকির আশঙ্কা কমে যায়। তাই শরীরের কোথাও কোনো চাকা হলে বা পেট ভারী হওয়ার মতো সমস্যা দেখা গেলে চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

 

শামীম আহমেদ

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © crimeseen24.com-2017
Design By MrHostBD